ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টারে মোড়ানো সিলেট নগরী,কোটি টাকা ব্যয়

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ১২:৫৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২, ২০১৯

ডায়ালসিলেট ডেস্ক:দোয়ারে কড়া নাড়ছে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। ৫ ডিসেম্বরের সম্মেলনকে ঘিরে প্রস্তুত আলীয়া মাদরাসা মাঠ। সম্মেলন ও কাউন্সিলকে সামনে রেখে নগরে এখন সাজ সাজ রব। ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টারে মোড়ানো সিলেট নগরী।সম্মেলনস্থলসহ সিলেটের আনাচে কানাচে বিশালাকারের ব্যানার-ফেস্টুন-পোস্টারে ছেয়ে গেছে সিলেট নগরী। নগরীর প্রধান সড়ক থেকে অলিগলি সবখানেই ব্যানার-ফেস্টুনে চেয়ে গেছে সিলেট নগরী। এমনকি হাসপাতালের ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামন, সিসিকের ইজারাকৃত বিলবোর্ড ঢেকে দেওয়া হয়েছে ব্যানার-ফেস্টুনে। বিদ্যুতের তারে জুড়ে দেওয়া হয়েছে ফেস্টুন। আর এসব বিশালাকারের ব্যানার-ফেস্টুন-পোস্টারে নেতাদের প্রচারে অন্তত কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে, বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন প্রেস মালিকরা।হাজারো ডিজিটাল ব্যানার, ফেস্টুন পোস্টারে শোভা পাচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সজিব ওয়াজেদ জয়, ওয়াবদুল কাদেরসহ কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাদের ছবি।নগরের রিকাবীবাজার, চৌহাট্টা পয়েন্টের চার পাশে বিশালাকারের বিল বোর্ড আর ফেস্টুনে হারিয়ে গেছে আশপাশের প্রকৃতিও।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রেস মালিকদের কয়েকজন জানান, ডিজিটাল ব্যানার ১৪ থেকে ১৭ টাকা ফুট হিসেবে রাখা হয়। সে অনুপাতে কেউ যদি ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার বেশি তৈরী করেন তখন ফুট প্রতি মূল্য সর্বনিম্ন ১৪ টাকা পর্যন্ত রাখা যায়। সে অনুপাতে লাখ লাখ ফুট ব্যানার ফেস্টুন, পোস্টার তৈরী করা হয়েছে। সর্বোচ্চ ১৫/১০ থেকে বিভিন্ন সাইজের বিলবোর্ড করা হয়েছে
নেতাদের অনেকের পোস্টারে ছবিতে গ্রুপিংয়ের বিষয়টিও দৃশ্যমান হয়ে ওঠেছে। কেউ কেবল দলীয় প্রধান ও বঙ্গবন্ধুর ছবি দিয়ে, অনেকে পদ প্রত্যাশী নেতার সঙ্গে কেন্দ্রীয় নেতাদের ছবি জুড়ে দিয়েছেন।কেউ বা ছবি ব্যবহার করেছেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও তার অনুজ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর।কাঙ্ক্ষিত পদপ্রার্থীদের অনেকে সৌজন্য ছাতা নিজেই দিয়েছেন ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার। তবে সব কথার শেষ কথা শীর্ষ সারির নেতাদের নজরে আসতে কোটি টাকাও খরচ করা মামুলি মনে করেন নেতাকর্মীরা।
সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর চৌহাট্টা পয়েন্ট, রিকাবিবাজার পয়েন্ট, আম্বরখানা পয়েন্ট, সিটি পয়েন্ট, জিতু মিয়ার পয়েন্ট, সুরমা মার্কেট পয়েন্ট, জিন্দাবাজার পয়েন্টসহ নগরীর অধিকাংশ জায়গায় দেখা গেছে ব্যানার পোস্টার আর ফেস্টুনের ছড়াছড়ি।