আসামে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে সরকারি মাদ্রাসা-সংস্কৃত কেন্দ্র

প্রকাশিত: ৬:০৮ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::     আজ (বৃহস্পতিবার) বিজেপির সরকারের শিক্ষামন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা ভারতের আসাম রাজ্যের সরকারি মাদ্রাসা ও সংস্কৃতি কেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে বলে সংবাদমাধ্যম জানান। জানা গেছে, আগামী ছয় মাসের মধ্যে এসব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে সাধারণ স্কুলে পরিণত করা হবে বলে ।

তিনি বলেন, ভারতে ধর্মনিরপেক্ষ সরকার রয়েছে, তাই সরকারি মাদ্রাসা ও সংস্কৃত কেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।যেহেতু রাজ্য সরকার ধর্মনিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান, ফলে তারা ধর্মীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালাতে পারে না। বেসরকারি মাদ্রাসা ও সংস্কৃত টোল চলতে পারে, তবে নিয়মিতভাবে সেখানে শিক্ষা চলছে কিনা, তা নজরদারি করতে শিগগিরই নতুন আইন আনা হবে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, ২০১৭ সালে মাদ্রাসার পাশাপাশি সংস্কৃত কেন্দ্র বোর্ডকে মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের সঙ্গে একীভূত করা হয়েছিল। এবার রাজ্য সরকার তা পুরোপুরি বন্ধ করে দিচ্ছে । এভাবে অনেক দিন ধরে চলা ধর্মীয় সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করছেন অনেকেই।

হিমন্ত শর্মা বলেন, শিশুদের ধর্ম, ধর্মগ্রন্থ ও আরবি ভাষা শিক্ষা দেয়া ধর্মনিরপেক্ষ সরকারের কাজ নয়। আসামে প্রায় ১২০০ মাদ্রাসা ও ২০০ সংস্কৃত টোল আছে। কিন্তু এগুলো পরিচালনা করার মতো স্বতন্ত্র কোনো বোর্ড নেই। এই প্রতিষ্ঠানগুলোর লোকজন ম্যাট্রিকুলেশন বা উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলের সমমানের সার্টিফিকেট পাওয়ায় অনেক সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।

সরকারি মাদ্রাসা বন্ধে বিজেপি সরকারের এ সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করছেন অনেকেই। মুসলিমবিদ্বেষী মানসিকতা থেকেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেই মনে করছেন অনেকেই।

0Shares