জৈন্তাপুরে ডাকাতির ঘটনায় আরো একজন আটক

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ৭:৪৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০

ডায়ালসিলেট ডেস্ক::  সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের পূর্ব লক্ষীপ্রসাদ গ্রামের ডাক্তার সিদ্দিক মিয়ার বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতির ঘটনায় জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শ্যামল বর্নিকের নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে (২০ ফেব্রুয়ারি) বৃহস্পতিবার ২টি ওয়ান শুটার পাইপগান সহ পাঁচ ডাকাতকে আটক করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যমতে (২৩ ফেব্রুয়ারি) ডাকাতির ঘটনায় জড়িত মো. আলকাস বেগ নামের নতুন আরেক জনকে আটক করা হয়েছে। এ নিয়ে ডাকাতির ঘটনায় মোট ৬জন ডাকাতকে আটক করেছে পুলিশ।

জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বনিক বলেন, ডাকাতির ঘটনার পর তাৎক্ষনিক ভাবে ১৮ ঘন্টার মধ্যে ২টি অস্ত্রসহ ৫ডাকাত সদস্য আটক করি। ডাকাতদের সহযোগীদেরও ছাড় দেয়া হবে না। অচিরেই তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হবে। ২৩ ফেব্রুয়ারি ভোর রাতে উপজেলার রুপচেং গ্রামের কেরামত আলী ওরফে বোদাই মিয়ার বাড়ীতে অভিযান পরিচালনা করে সুনামগঞ্জ জেলার ধর্মপাশা ইউনিয়নের বাদশাগঞ্জ গ্রামের মৃত আলম বেগ’র ছেলে আলকাস বেগ (৩২) কে আটক করা হয়। তার নিকট হতে লুন্ঠিত (সেম্ফনী ভি-১৫৫ এবং অপো-এ৩এস) মডেলের দুটি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়।

প্রসঙ্গত, ডাকাতরা (২০ ফেব্রুয়ারি) বৃহস্পতিবার রাত ২.৩০ মিনিটে ১৫-১৬ জনের একটি মুখোশ ধারী ডাকাত দল জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের পূর্ব লক্ষীপ্রসাদ গ্রামের ডাক্তার সিদ্দিক মিয়ার বাড়ীর ভিতরে প্রবেশ করে দেশীয় লোহার তৈরি পাইপগান দ্বারা বাড়ীর সকলকে জিম্মি করে নগদ ১ লক্ষ ৮১ হাজার ৫ শত টাকা এবং ৩ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা মূল্যের ৬ ভরি স্বর্ণালংকার, ৮টি মোবাইল সেট লুন্ঠন করিয়া নিয়ে যায়। পরে (২০ ফেব্রুয়ারি) বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সোয়া ১০টায় উপজেলার রুপচেং গ্রাম হতে ডাকাতির ঘটনার ধৃত আসামী আব্দুল হাকিম কিবরিয়ার বসতঘর হতে তাৎক্ষনিক ভাবে ৫ডাকাত সদস্য আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলার ব্রাহ্মণবাড়ীয়া সদর থানার চাঁনপুর (পাগাচং) গ্রামের মোহাম্মদ আলী প্রকাশ জজ মিয়া প্রকাশ আইনুল হকের ছেলে আব্দুল হাকিম কিবরিয়া (৩২), সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর থানার স্বজনশ্রী গ্রামের মৃত আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে ফজলু মিয়া (৩০), জৈন্তাপুর উপজেলার রুপচেং গ্রামের মৃত সামছুল হকের ছেলে মো. রাসেল (১৯), একই গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে আমিনুল ইসলাম (১৯), একই গ্রামের রুস্তম আলীর ছেলে মো. মোশারফ (১৯) আটক করা হয়।

এ পর্যন্ত আটককৃতদের দেওয়া তথ্যের বৃত্তিতে ২০ হাজার এবং দেশীয় লোহার তৈরি ২রাউন্ড গুলি সহ ২টি ওয়ান শুটার পাইপগান এবং ১টি সেম্ফনী ভি-১৫৫ এবং ১টি অপো-এ৩এস উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় ডাক্তার সিদ্দিকুর রহমানের নাতী মো. নাছির উদ্দিন আহমদ পাবেল বাদী হয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করে। মামলা নং-১৪, তারিখ ২১-০২-২০২০। পুলিশ অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় পৃথক আরেকটি মামলা রেকর্ড করে যাহার নং-১৫, তারিখ ২১-০২-২০২০।

0Shares