সিলেটের লাক্কাতুরা স্কুল মাঠে পশুর হাট স্থগিত করেছে হাইকোর্ট, তবুও চলছে হাটের কার্যক্রম

প্রকাশিত: ৭:৩৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৯, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক ::  সিলেটের লাক্কাতুরা সিলেট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় স্কুল মাঠে পশুর হাট স্থগিত করে দিয়েছেন হাই কোর্ট। আজ বুধবার (২৯ শে জুলাই দুপুরে হাইকোর্টে রিট পিটিশনের প্রেক্ষিতে এ স্থগিতাদেশ দেন বিচারপতি তারিক উল হাকিম।

পরে হাইকোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবী এডভোকেট মুশতাক আহমদ চৌধুরী বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন,সিলেটের লাক্কাতুরা এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা মো: কাদির আহমদের পিটিশনের ভিত্তিতে মহামান্য হাইকোর্ট এই অস্থায়ী স্থগিতাদেশ দেন। এই স্কুলের মাঠে পশুর হাট বন্ধের দাবিতে সিলেটের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনগলো আন্দোলন করে আসছিল। এসময় স্থানীয় বাসিন্দা কাদীর আহমদ স্কুল মাঠে পশুর হাট বন্ধের জন্য আজ বুধবার সুপ্রিম কোর্টে রিট আবেদন করেন। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোস্তাক আহমদ চৌধুরী তার পক্ষ্যে এই আবেদন করেন। ভার্চুয়াল বেঞ্চে শুনানি শেষে বিচারপতি তারিক উল হাকিম লাক্কাতুরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর স্থগিতাদেশ দেন। এখন থেকে লাক্কাতুরা স্কুল মাঠে অস্থায়ী পশুর হাট বসানো যাবে না।

এদিকে মুজিববর্ষে বিভিন্ন স্কুলে বিদ্যালয়ের আঙিনায় রোপণ করা হয় বিভিন্ন গাছ সেগুলোও দেখা যায় নষ্ট করা হয়েছে। এমনকি বিদ্যালয়ের প্রতিষ্টানের নামের সাইনবোর্ডও তুলে ফেলা হয় পশুর হাট বসানোর জন্য।

সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামের পথ দিয়েই যেন পশুর হাট বসিয়ে চলছে রমরমা ব্যবসা আবার সরকারি বিধি অনুযায়ী মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব।

স্বাস্থ্যবিধি নিয়ম মানা সর্ম্পকে জানতে চাইলে সে বিষয়ে রুবেল এন্টারপ্রাইজের সত্ত্বাধিকারী রুবেল আহমদ ডায়ালসিলেটকে  বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানা নিয়ে আমরা যতটুকু পারছি বুঝানোর চেষ্টা করছি অন্যতায় না মানলে আমাদের কিছু করার নেই তারপরও বুঝানোর চেষ্টা করছি।

অন্যদিকে সিলেট সদর উপজেলা পরিষদ দরপত্র আহবানের মাধ্যমে টেন্ডারের অংশগ্রহনের মাধ্যমে তিনি পেয়েছেন বলে জানান। মুজিববর্ষে রোপণ করা বৃক্ষ নষ্ট হওয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, গাছগুলোকে অপসারন করে যেন ক্ষতি না হয় সেজন্য স্কুলের প্রধান শিক্ষক, ইউএনও, ও জেলা প্রশাসক এর সাথে আলাপ আলোচনা করে সেখান থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে এবং পরবর্তীতে তা আবারো সেখানে স্থাপন করা হবে বলে জানান।

রাস্তায় পশুর হাট বসনো নিয়ে জানতে চাইলে রুবেল আহমদ বলেন, রাস্তায় কোন হাট বসানো হয়নি তবে সেখানে ট্রাক থেকে নামিয়ে পাইকারিরা একটি স্থানে রেখে পরবর্তীতে সেটি মাঠের ভেতরে ঢুকানো হয়।

উল্লেখ্য, লাক্কাতুরা সরকারি উচ্চবিদ্যালয় ও লাক্কাতুরা চা-বাগান কর্তৃপক্ষের আনুষ্ঠানিক আপত্তি সত্ত্বেও লাক্কাতুরা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে হাটের ইজারা দেয় সিলেট সদর উপজেলা প্রশাসন। যা পরিবেশবাদীসহ বিভিন্ন মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি করে। লাক্কাতুরা স্কুলের মাঠে পশুর হাট না বসাতে  আন্দোলনে নামে পরিবেশবিদরা।

0Shares