ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্কের বদলে প্রতিরোধ অব্যাহত রাখাবে হামাস

প্রকাশিত: ৪:৫৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৯, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃঃ ফিলিস্তিনের প্রথম ইন্তেফাদা আন্দোলনের ৩৩তম স্মরণসভায় ইসরায়েলের সঙ্গে সব ধরণের সম্পর্ক প্রত্যাখ্যান করে প্রতিরোধ যুদ্ধ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে হামাস। গতকাল মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) হামাসের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান মাহের সালাহ এক বিবৃতিতে একথা বলেন।

সালাহ বলেন, ‘ইসরায়েলের স্বাভাবিক সম্পর্কের ভাবনা প্রত্যাখ্যান করে স্বাধীন ফিলিস্তিন গঠন ও জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠায় হামাস বদ্ধপরিকর। ফিলিস্তিনের জাতীয়-আন্তর্জাতিক সব দলের ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ জাতি গঠন এবং স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে সর্বাত্মক চেষ্টা অব্যাহত রাখবে হামাস।’

সালাহ আরো বলেন, ‘অখণ্ড জেরুজালেম নগর গঠন এবং আল আকসা মসজিদ নিয়ে ইহুদিবাদি পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান অব্যাহত রেখেছে হামাস। এছাড়া গাজা উপত্যাকার অবরোধ প্রত্যাহার, পশ্চিম তীর সংযুক্তিকরণ পরিকল্পনা ও ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের অধিকার আদায়ে কাজ করছে হামাস।’

১৯৮৭ সালের ১৪ ডিসেম্বর ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী দল হামাস প্রতিষ্ঠিত হয়। শায়খ আহমদ ইয়াসিনসহ তৎকালীন বড় বড় নেতাদের সমন্বয়ে এটি গঠিত হয়।

প্রতি বছর ৯ ডিসেম্বর নানাভাবে প্রথম ইন্তেফাদার স্মরণসভা পালন করে ফিলিস্তিনিরা। ১৯৮৭ সাল থেকে শুরু হয়ে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত সময় ফিলিস্তিনের ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। দীর্ঘকালের প্রতিরোধ যুদ্ধের পর যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল ও আরব রাষ্ট্রগুলো ‘ফিলিস্তিন জাতীয় কর্তৃপক্ষ’-কে স্বীকৃতি দেয়।

১৯৯৩ সালে ইসরায়েল ও প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের মধ্যে অসলো শান্তি চুক্তির পর প্যালেস্টাইন ন্যাশনাল অথোরিটি গঠিত হয়। শান্তি চুক্তির আলোকে ১৯৯৯ সালের ভেতর ’৬৭ সালের সীমারেখায় স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের কথা বলা হয়। তবে ইসরায়েল তা পালন করেনি। ইসরায়েল কর্তৃক ভূমি দখল বন্ধ না হওয়ায় ও স্বাধীন ফিলিস্তিন গঠনের আশায় ২০০০ সাল থেকে ২০০৪ পর্যন্ত দ্বিতীয় ইন্তেফাদা অব্যাহত থাকে।

0Shares