বিচ্ছিন্নতার মুখোমুখি মিয়ানমার

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ১২:১১ অপরাহ্ণ, মার্চ ২২, ২০২১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::

মিয়ানমারে ইন্টারনেট পরিসেবা ক্রমাগতভাবে সীমিত হতে থাকায় এবং শেষ বেসরকারি সংবাদপত্রটির প্রকাশনাও বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দেশটি কার্যত বিচ্ছিন্নতার মুখোমুখি।

অন্যদিকে ফ্রান্সের অন্যতম বৃহৎ জ্বালানি কোম্পানি ‘ইলেক্ট্রিসিটে ডে ফ্রান্স’ মিয়ানমারে একটি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প স্থগিত করেছে। মিয়ানমারের বিভিন্ন স্থানে রোববারও হয়েছে সামরিক জান্তা বিরোধী বিক্ষোভ।

সামরিক জান্তা ক্ষমতা দখলের পর ইন্টারনেট পরিষেবা ক্রমাগতভাবে শিথিল হওয়ায় একেক পর এক বন্ধ হচ্ছে মিয়ানমারের গণমাধ্যমগুলো। তবে রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যমগুলোতে তার প্রভাব পড়েনি। দুদিন আগে রাজধানী নেপিদোর একটি আদালত থেকে আটক করা হয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিসিসির সাংবাদিক অং থুরারে। এখনও পর্যন্ত তার কোনো খবর পাওয়া যায়নি। এমন পরিস্থিতিতে মিয়ানমারে সংবাদ সংগ্রহ ও পরিবেশন কঠিন হচ্ছে বলে মনে করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো।

মিয়ানমারের শান রাজ্যে ফরাশি কোম্পানি ইলেট্রিসিটে ডে ফ্রান্স এর বাতিল হওয়া প্রকল্পটির আনুমানিক ব্যয় ১৫০ কোটি ডলার। সামরিক অভ্যুত্থানবিরোধী চলমান বিক্ষোভে রক্তপাত ও সহিংসতার পর এই সিদ্ধান্ত জানালো ফরাসি কোম্পানিটি।

মিয়ানমারের রেঙ্গুনসহ বিভিন্ন রাজ্যে রোববারও হয়েছে সামরিক জান্তা বিরোধী বিক্ষোভ। বিভিন্নস্থানে থেকে থেকে সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে। শনিবার মিয়ানমার আর্মির গুলিতে দুজন নিহতের খবর পাওয়ার পর কোনো সংবাদমাধ্যমে হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

সেনাবাহিনী ও বেসামরিক সরকারের মধ্যে নির্বাচনে জালিয়াতি নিয়ে চলমান উত্তেজনার মধ্যে ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থান ঘটে। পরে সেনাবাহিনী এক ঘোষণায় জানায়, আগামী ১ বছরের জন্য মিয়ানমারের ক্ষমতায় থাকবে তারা।

গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারকে সরিয়ে দিয়ে সেনা অভ্যুত্থানের ঘটনায় হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করতে রাস্তায় নেমে আসে। বড় জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা ও রাত্রিকালীন কারফিউ থাকা সত্ত্বেও তারা বিক্ষোভ দেখায়।

দেশটিতে চলমান আন্দোলনে নিহতের সংখ্যা ২৩৭ এ দাঁড়িয়েছে বলে জানিয়েছে অ্যাস্টিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিকাল প্রিজনার্স।

0Shares