ভারত ফেরত ৬ জনসহ ৭ করোনা রোগী গ্রেপ্তার

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ৪:১২ অপরাহ্ণ, মে ১০, ২০২১

ডায়ালসিলেট ডেস্ক::

যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়া ভারত ফেরত ছয়জনসহ ৭জন করোনা রোগীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তার আগে অবশ্য তারা হাসপাতাল থেকে করোনামুক্ত হওয়ার ছাড়পত্র পান।

পুলিশ তাদের পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় শনিবার প্রতিবেদন দেয়ার পর আদালত তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

এ মামলায় অভিযুক্ত আরও তিনজন চিকিৎসাধীন থাকায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়নি।

যশোর পুলিশের বিশেষ শাখার পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম জানান, করোনা ওয়ার্ড থেকে পালিয়ে যাওয়া ওই রোগীদের বিরুদ্ধে গত শনিবার যশোর কোতোয়ালি থানার পুলিশ ২০১৮ সালের সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনের ২৫ (২) ধারায় প্রতিবেদন দাখিল করে।

আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করায় সোমবার সকালে তাদেরকে যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে আদালত তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

গ্রেপ্তাররা হলেন- যশোর শহরের পশ্চিম বারান্দিপাড়ার বিশ্বনাথ দত্তের স্ত্রী মনিমালা দত্ত (৪৯), সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপপাড়া গ্রামের মিলন হোসেন (৩২), রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর গ্রামের নাসিমা আক্তার (৫০), খুলনা সদর উপজেলার বিবেকানন্দ (৫২), খুলনার পাইকগাছা উপজেলার ডামরাইল গ্রামের আমিরুল সানা (৫২), একই জেলার রূপসা উপজেলার সোহেল সরদার (১৭) ও স্থানীয় রোগী যশোর সদর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের রবিউল ইসলামের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (১৯)। সোমবার সকালে এ সাতজনকে ছাড়পত্র দেয় হাসপাতাল।

এ ছাড়া অভিযুক্ত ভারত ফেরত সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার শেফালি রানী সরদার (৪০), স্থানীয় রোগী যশোর সদর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের একরামুল কবীরের স্ত্রী রুমা (৩০) ও যশোর শহরের ওয়াপদা গ্যারেজ এলাকার ভদ্র বিশ্বাসের ছেলে প্রদীপ বিশ্বাস (৩৭) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি তাজুল ইসলাম জানান, তারা গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত। হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়ার পর তাদের গ্রেপ্তার করা হবে।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় জানান, গত ১৮ থেকে ২৪ পর্যন্ত এপ্রিল পর্যন্ত বেনাপোল সীমান্তে করোনা শনাক্ত হয়ে ৬ জন যশোর জেনারেল হাসপাতালে আসেন। তাদেরকে জরুরি বিভাগ থেকে হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে পাঠানো হলে তারা সেখানে না গিয়ে পালিয়ে যান। ভারত ফেরত করোনা শনাক্তদের পালিয়ে যাওয়ার খবর আলোচনা সৃষ্টি করে।

এ সময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় প্রশাসন পালিয়ে যাওয়াদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ২৬ এপ্রিল রাতের মধ্যে তাদের ফিরিয়ে নিয়ে আসে হাসপাতালে।

0Shares