যুক্তরাষ্ট্র ও চীন থেকে টিকা আসছে শিগগিরই

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ৯:৩৮ পূর্বাহ্ণ, জুন ৭, ২০২১

ডায়ালসিলেট ডেস্ক::বাংলাদেশের চাহিদা মতো যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন থেকে শিগগিরই করোনার টিকা আসছে বলে
জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন। রোববার রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পর সাংবাদিকদের তিনি এই তথ্য জানান। রাশিয়া থেকে টিকা কেনা ছাড়াও দেশটির উদ্ভাবিত টিকা বাংলাদেশে যৌথ উৎপাদন বিষয়ে আলোচনা চলছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, দেশটির সঙ্গে চুক্তি চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। আশা করছি, খুব তাড়াতাড়ি হবে। তবে কখন হবে- না হবে, সেটি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলতে পারবে। আমরা লাইন করিয়ে দিয়েছি, বাকিটা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়-দায়িত্ব। টিকা নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে ক’টি চুক্তি হবে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, চুক্তি ক’টা হবে তা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ঠিক করবে। তবে ক্রয় এবং যৌথ উৎপাদন- উভয় ক্ষেত্রেই আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

চীনের কাছ থেকে টিকা কেনার ক্ষেত্রে জটিলতার যে খবর চাউর হয়েছে তা নাকচ করে দেন মন্ত্রী। দেশটির সঙ্গে এ নিয়ে সম্পর্কের কোনো ঘাটতি হয়েছে কিনা- এমন সম্পূরক প্রশ্নে মন্ত্রী মোমেন বলেন, না সম্পর্কেরও কোনো ঘাটতি হয়নি। যে কনফিউশনের খবর চাউর হয়েছে তা মন্ত্রী নিজেও শুনেছেন দাবি করে এর একটি ব্যাখ্যা দেন। বলেন, আমরা টিকা কিনবো কোম্পানির কাছ থেকে। এখানে দুই সরকার বিষয়টি ফ্যাসিলিটেট করছে। ডিপ্লোমেটিক্যালি আমরা সম্মত যে, বাংলাদেশ চীনের টিকা উৎপাদনকারী কোম্পানির কাছ থেকে টিকা কিনবে। আর চীন আমাদের চাহিদা মতো বাধাহীনভাবে তা সাপ্লাই করবে। আমরা চীন সরকারকে বলেছি এ ক্ষেত্রে ফ্লো’টা যেনো ঠিক থাকে, কোনো পরিবর্তন যেনো না হয়। চীন আমাদের বলেছে, তারা কোনো বাধা ছাড়াই টিকা সরবরাহ করবে। চীনের সঙ্গে যৌথভাবে টিকা উৎপাদনের প্রস্তাব সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমাকে বলেছেন, তাদের একটি টিম ফিল্ড ভিজিটে আসবে। তারা এসে সরজমিন দেখে বিষয়টি চূড়ান্ত করবে। সেই ভিজিট এখনো হয়নি।
যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশ কি পরিমাণ টিকা পাচ্ছে- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, তারা প্রকৃত পরিমাণ বলেনি, তবে দেবে আমাদের চাহিদা মতো। বাংলাদেশ সরকার মোটামুটিভাবে ৭০ ভাগ লোককে টিকার আওতায় আনার চেষ্টা করছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ১৬৫ মিলিয়ন লোকের দেশের কমবেশি ১৩০ মিলিয়ন লোককে টিকা দিতে হবে। সে ক্ষেত্রে দুই ডোজ করে অন্তত ২৬০ মিলিয়ন টিকা প্রয়োজন।
মন্ত্রীর দপ্তরে বাইরে দিনভর অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের সঙ্গে বিদায় বেলার আলাপে নানা বিষয়ে কথা হয়। সেখানে মন্ত্রী একটি বিদেশি সংবাদ মাধ্যমের খবরের বিষয়ে সাংবাদিকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। বলেন, বিদেশি সংবাদ মাধ্যমে খবর বেরিয়েছে মিয়ানমারকে টিকা কেনার জন্য ৭টি বিদেশি ব্যাংক প্রায় ২৪ বিলিয়ন ডলার ঋণ দিচ্ছে। ওই ব্যাংকগুলো সেসব দেশের যারা মানবাধিকার নিয়ে বড় বড় কথা বলে। অথচ অব্যাহতভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে যেই দেশে সেই মিয়ানমারকে তারা ২৪ বিলিয়ন ডলার দিচ্ছে, যা মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়। মন্ত্রী সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা সেই সব দেশের রাষ্ট্রদূতদের কাছে যান। তাদের জিজ্ঞাসা করুন, মুখে মানবাধিকারের কথা বললেও তলে তলে তারা উল্টো কাজ করছে কেন? এ সময় অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমরা দরিদ্র দেশগুলো টিকার জন্য হাহাকার করছি। অথচ ধনী রাষ্ট্রগুলো ৯৯.৭ ভাগ টিকা মজুত করে বসে আছে। এটা খুবই অন্যায়। মন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী করোনাকালের সূচনা থেকেই বলে আসছেন টিকাকে অবশ্যই ‘পাবলিক গুডস’ হিসেবে সবার জন্য উন্মুক্ত করতে হবে। এতে ধনী-দরিদ্র বৈষম্য যেনো না হয়। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। আজ ধনী দেশগুলোর টিকা মজুতে উদ্বেগ প্রকাশ করতে হচ্ছে জাতিসংঘ মহাসচিবকে। তারপরও কাজ হচ্ছে না। মিডিয়া এ নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারে, হৈচৈ করতে পারে বলে মনে করেন মন্ত্রী।

ভাসানচরে যুক্ত হচ্ছে জাতিসংঘ: এদিকে এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ভাসানচরে স্থানান্তরিত রোহিঙ্গাদের দেখভালে শিগগিরই জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর যুক্ত হচ্ছে। রোববার প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে ১০ জন বিদেশি দূতের সঙ্গে মুখ্য সচিবের বৈঠক হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সেখানে তারা ভাসানচরে জাতিসংঘের সম্পৃক্ততার বিষয়ে ইতিবাচক মত দিয়েছেন। সদ্য ঢাকা সফর করে যাওয়া বৈশ্বিক ওই সংস্থার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারাও ভাসানচরে সম্পৃক্ততার বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছেন বলে জানান মন্ত্রী।
রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত যা বললেন-
ওদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠকের পর ঢাকাস্থ রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আলেকজান্ডার ইগনাটভ বলেন, রাশিয়া থেকে করোনার টিকা সংগ্রহের বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি প্রায় চূড়ান্ত হয়ে আছে। বাংলাদেশে যৌথ উৎপাদনের বিষয়ে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতের মন্তব্য ছিল- ‘এ বিষয়েও আলোচনা হয়েছে, তবে এটি একটি জটিল প্রক্রিয়া।’

এ/

0Shares