ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ব্রাজিল

প্রকাশিত: ৮:৪৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০২১

ডায়ালসিলেট ডেস্ক :: গ্রুপ পর্বের ম্যাচে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ব্রাজিলের সামনে। ওই ম্যাচের স্কোরলাইন ৪-০ দেখে সেমিফাইনালে পেরুকে অবলীলায় তুলনামূলক সহজ প্রতিপক্ষ বলে চালিয়েও দেওয়া যায় হয়তো। তবে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের জন্য সমীকরণ এলেও অত সহজ হবে কি না, সে প্রশ্নও উচ্চারিত একই সঙ্গে। কারণ ওই একটি ম্যাচ বাদ দিলে পেরুকে দেখা গেছে অন্য চেহারায়ই। কলম্বিয়া ও ভেনিজুয়েলাকে হারানোর পাশাপাশি ইকুয়েডরের সঙ্গে ড্র করে ‘বি’ গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় হয়েই নক আউট পর্বের টিকিট কেটেছিল তারা।

বিশেষ করে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে রোমাঞ্চকর কোয়ার্টার ফাইনালে তারা দৃঢ় মানসিকতার জানান দিয়েছে আরেকবার। ৩-৩ গোলের সমতা নিয়ে শেষ হওয়া ম্যাচ টাইব্রেকারে জিতে শেষ চার নিশ্চিত করা পেরুর মতো ব্রাজিলকেও কোয়ার্টার ফাইনালে পড়তে হয়েছিল কঠিন লড়াইয়ের মুখে। চিলির বিপক্ষে ৪০ মিনিটেরও বেশি সময় একজন কম নিয়ে খেলতে হয় ব্রাজিলকে।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় ভোর ৫টায় রিও ডি জেনেইরোর নিল্টন সান্তোস স্টেডিয়ামে কোপা আমেরিকার প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে ব্রাজিল ও পেরু। এবারের গ্রুপপর্বের ম্যাচে ৪-০ ব্যবধানে জয় কিংবা গত আসরের ফাইনালে ৩-১ গোলের জয়- পেরুর বিপক্ষে সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান কথা বলছে ব্রাজিলের পক্ষে। দুই দলের বর্তমান ফর্ম বিবেচনায়ও এগিয়ে রয়েছে ৮ বারের চ্যাম্পিয়নরাই। সেমিফাইনালের আগে সংবাদ সম্মেলনে ব্রাজিল কোচ তিতে বলেন, ‘দুইটি ম্যাচ আলাদা এবং পরিস্থিতি-সময়ও আলাদা। পাশাপাশি এই ম্যাচের চাহিদাও অনেক উঁচু। তাই আমাদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য তাদের চেয়ে ভালো খেলা জরুরি। কারণ তারাও ফাইনালে যেতে চায়, তাদের লক্ষ্যও এটা।

সংবাদ সম্মেলনে তিতের সঙ্গে আসা ব্রাজিল দলের মিডফিল্ডার ফ্রেডও বলেছেন একই কথা। এখনই ফাইনালের ব্যাপারে না ভেবে বরং পেরুর বিপক্ষে ম্যাচটির দিকেই মনোযোগী তারা। ফ্রেড বলেন, ‘আমরা ফাইনালের ব্যাপারে চিন্তাও করছি না। আমরা যদি আগামীকালের ম্যাচ বাদ দিয়ে ফাইনালের কথা ভাবতে থাকি, তারা (পেরু) হয়তো আমাদের চমকে দেবে। পেরু আত্মবিশ্বাসী হয়েই খেলতে নামবে। আমাদের তাই প্রস্তুত থাকতে হবে।’

ব্রাজিলের সঙ্গে লড়াইয়ের পরিসংখ্যান তাদের পিছিয়ে রাখলেও গত এক দশকে কোপা আমেরিকায় তাদের সাফল্য উল্লেখ করার মতোই। ৪৯ ম্যাচের মধ্যে ব্রাজিলকে মাত্র পাঁচবার হারাতে পারা দলটির ২০১৯ সালে কোপার ফাইনালে খেলা যে কোনো অঘটন ছিল না, ইতিহাসও সে সাক্ষ্যই দিচ্ছে। ২০১১ ও ২০১৫-র আসরে তারা হয়েছিল তৃতীয়। একই সময়ে অবশ্য কোপায় ব্রাজিলের সময়টি কেটেছে দুঃসহই।

২০১১-১৬-র মধ্যে দুইবার তাদের বিদায় নিতে হয়েছে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে। যুক্তরাষ্ট্রে হওয়া ২০১৬-র আসরে তারা পেরোতে পারেনি গ্রুপ পর্বের বাধাই।

তবে লাতিন আমেরিকান ফুটবল শ্রেষ্ঠত্বের আসরে নিজেদের হারানো ছন্দটা তারা আবার ধরেছে ২০১৯ সালে। সেবার ফাইনালে ট্রফি উঁচিয়ে ধরা ব্রাজিলের সামনে হতাশায় মুহ্যমান পেরুও দারুণ ধারাবাহিক। না হলে কি আর আবারও ফাইনালের প্রায় দুয়ারে চলে আসে তারা? গ্রুপ পর্বে ব্রাজিলের কাছে বিধ্বস্ত হওয়া দলটি যে সেমিফাইনালে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ক্ষেত্রই তৈরি করবে, সে আশায় তাই বাড়াবাড়ি নেই কোনো। তবে পেরুকে সহজ প্রতিপক্ষ মনে করেন না ব্রাজিল দলের কোচ লিওনার্দো বাচ্চি তিতে।

0Shares