আফগানিস্তানের ওয়াখান শহরের নিয়ন্ত্রণ নিল তালেবান

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ১১:৪৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২১

ডায়ালসিলেট ডেস্ক :: আফগানিস্তানের বাদাখশন প্রদেশের ওয়াখান শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তালেবান। ওয়াখান চীনের সাথে আফগানিস্তানের একমাত্র সীমান্ত শহর। রোববার গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান, বাদাখশান প্রদেশের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য আব্দুল্লাহ নাজি নাজারি।

তিনি বলেন, বাদাখশান প্রদেশে তালেবান তাদের দখলদারীত্ব অব্যাহত রেখেছে। তারা চীনের সিন কিয়াং প্রদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় পৌঁছে গেছে। ওয়াখান জেলায় মোতায়েন আফগান সরকারি সেনারা তাজিকিস্তানে পালিয়ে গেছে এবং তালেবান শহরটি বিনা যুদ্ধে দখল করে নিয়েছে বলে জানান তিনি।

হিন্দুকুশ পর্বতমালায় সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪,৯২৩ মিটার উঁচুতে অবস্থিত দুর্গম পাহাড়ি পথ ওয়াখজির পাস হচ্ছে আফগানিস্তান এবং চীনের মধ্যে যাতায়াতের একমাত্র পথ। আফগানিস্তানের সীমান্তবর্তী জেলা ওয়াখানের পর পাকিস্তান ও তাজিকিস্তানের মধ্যবর্তী এই গিরিপথটি অবস্থিত যেটিকে ওয়াখান করিডোরও বলা হয়। চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরের প্রান্তসীমায় এটির অবস্থান বলে এটির নিরাপত্তা বেইজিং-এর কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

তালেবান এর আগে আফগানিস্তান-তাজিকিস্তান সীমান্তের পাশাপাশি ইরানের সঙ্গে দুটি স্থলবন্দর এবং পাকিস্তানের সঙ্গে একটি স্থলবন্দর দখল করে নেয়। হেরাতের সঙ্গে তুর্কমেনিস্তান সীমান্তের নিয়ন্ত্রণও গ্রহণ করে তালেবান।

উনবিংশ শতাব্দির শেষের দিকে ভারতীয় উপমহাদেশ শাসন করছিল ইংরেজরা এবং মধ্য এশিয়া শাসন করছিল রুশ সামাজ্য। ফলে এ দুই সামাজ্যের মধ্যে সীমান্ত সংঘাত দেখা দেয়। এর প্রেক্ষিতে ১৮৯৩ সালের রুশ বৃটেন চুক্তির ফলে ভারতীয় উপমহাদেশ এবং মধ্য এশিয়ার মধ্যে একটি বাফার অঞ্চল গঠন করা হয় (বর্তমান ওয়াখান করিডর) এবং সে অঞ্চলটি নিরপেক্ষ দেশ আফগানিস্তানকে দেয়া হয়।

ভৌগলিকভাবে ওয়াখান করিডর খুবই দুর্গম। এর উত্তর পশ্চিম দিকে তাজিকিস্তান, দক্ষিণ দিকে পাকিস্তান এবং উত্তর পূর্ব দিকে চীন সীমান্ত রয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে আফগানিস্তানের শতকরা ৮৫ ভাগ এলাকা নিজেদের দখলে নেয়ার দাবি করেছে তালেবান যদি কাবুল সরকার এই দাবি প্রত্যাখ্যান করেছে।

এদিকে আফগানিস্তানে সংঘর্ষ অব্যাহত রয়েছে। সোমবার সকালে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের প্রদেশ হেলমান্ডে বোমা বিস্ফোরণে তিন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ছয়জন।

এছাড়া আফগানিস্তানের বিভিন্ন এলাকায় সরকারি বাহিনীর সঙ্গে তালেবানের তুমুল সংঘর্ষ অব্যাহত রয়েছে। গত শুক্রবার দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় দুই প্রদেশের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে কমপক্ষে তালেবানের ১০৯ সদস্য নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও ২৫ জন। আফগান সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

এদিকে ইরানের সরকারি বার্তা সংস্থা ইরনা এসব সংঘর্ষের খবর জানিয়ে বলেছে, কোনো কোনো স্থানে আফগান সৈন্যরা তালেবানের অগ্রাভিযান প্রতিহত করেছে এবং কোনো কোনো জেলা তালেবানের দখলে চলে গেছে।

ডায়ালসিলেট/এম/এ/

0Shares