সৌদি প্রবাসীর ভিওআইপি ব্যবসা, আটক ১

প্রকাশিত: ১১:২৬ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১

সৌদি প্রবাসীর ভিওআইপি ব্যবসা, আটক ১

ডায়ালসিলেট ডেস্ক :: সৌদি আরবে বসবাস করলেও অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা করেন ঢাকার মোহাম্মদপুরে। গত প্রায় দেড় বছর ধরে কর্মচারীদের মাধ্যমেই এই ব্যবসা চালিয়ে আসছিলেন আলী নামে এক ব্যক্তি।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) জানায়, ওই বাসা থেকে এক হাজারের বেশি টেলিটক সিম ব্যবহার করে মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসা ফোন কল অবৈধভাবে ট্রানজেকশন করা হতো। শুধুমাত্র সৌদি প্রবাসী এই আলীর ভিওআইপি ব্যবসায়তেই সরকার রাজস্ব হারিয়েছে প্রায় ৭-৮ কোটি টাকার।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় মোহাম্মদপুরের লালমাটিয়ার একটি বাসায় র‌্যাব ও বিটিআরসির যৌথ অভিযানে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার সরঞ্জামসহ শফিকুল ইসলাম (৩৫) নামে একজনকে আটক করা হয়।

অভিযান শেষে রাতে র‌্যাবের লিগ্যাল আ্যন্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের লালমাটিয়ার জাকির হোসেন রোডের ই-ব্লকের জি-ফাইভ বাসায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার সরঞ্জামসহ শফিকুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে। আটক শফিকুল ওই বাসার কেয়ারটেকার। উদ্ধার ভিওআইপি সরঞ্জামের মূল মালিক আলী নামের একজন সৌদি প্রবাসী। তিনি প্রবাসে থাকলেও তিনজন কর্মী রেখে ভিওআইপি ব্যবসা পরিচালনা করতেন। তিনজনের মধ্যে দু’জন সার্ভার মেইনটেইন করতেন। তবে তারা এখন পলাতক রয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, অভিযানে এক হাজারের বেশি টেলিটকের সিম উদ্ধার করা হয়েছে। এই সিম ব্যবহার করে মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসা ফোন কল অবৈধভাবে ট্রানজেকশন করতো। অভিযানে প্রায় ৩০ লাখ টাকার ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। এই সরঞ্জাম ব্যবহার করে একসঙ্গে ১৬০টি কল ট্রানজেকশন করা হতো।

এক প্রশ্নের জবাবে র্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, অবৈধ ভিওআইপি ফোন কলের মাধ্যমে সরকার প্রতি বছর ৫ কোটি টাকার রাজস্ব হারিয়েছে। চক্রটি গত দেড় বছর ধরে অবৈধ ভিওআইপির ব্যবসা করে আসছিল। সেই হিসেবে শুধুমাত্র তাদের মাধ্যমেই সরকারের ৭ থেকে ৮ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

ডায়ালসিলেট/এম/এ/

0Shares