মানুষ সাম্প্রদায়িকতা রুখে দিতে প্রস্তুত : এডভোকেট সামসুজ্জামান

প্রকাশিত: ৭:৫৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২১

মানুষ সাম্প্রদায়িকতা রুখে দিতে প্রস্তুত : এডভোকেট সামসুজ্জামান

ডায়ালসিলেট ডেস্ক :: এদেশ সিরিয়া, ফিলিস্তিন, মায়ানমার নয়, এটা বাংলাদেশ। এ মাটিতে বিশ্ববিখ্যাত পীর-আউলিয়া, আলেম-উলামা শুয়ে আছেন। তাই বাংলার মাটিতে কোন ধরণের সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টি করতে দেওয়া হবে না। এদেশের ইসলাম প্রিয় মানুষ, শান্তিপ্রিয় মানুষ সকল ধরণের সাম্প্রদায়িকতা রুখে দিতে প্রস্তুত রয়েছে।

সিটিজেন সলিডারিটি মুভমেন্ট ও বাংলাদেশ স্টুডেন্ট ইউনিটির উদ্যোগে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার দাবিতে ‘সম্প্রীতির সমাবেশ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন দৈনিক শ্যামল সিলেটের সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি এডভোকেট সামসুজ্জামান জামান।

তিনি বলেন, ‘ইসলাম শান্তির ধর্ম। এ ধর্মে হানাহানি, মারামারির কোন স্থান নেই। মহানবী (স.) মক্কা বিজয়ের সময় কাফের-মুশরিকদের সাধারণ ক্ষমা করে দিয়েছিলেন। ইসলাম ধর্ম বিশ্বজুড়ে শান্তির বাণী পৌঁছায়। কাজেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হলো ইসলাম ধর্ম।’

কেয়ামতের দিন রাসূল (স.) নিজের বাদী হয়ে আল্লাহর দরবারে কিছু মুসলমানদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করবেন- এ হাদিস উল্লেখ করে সামসুজ্জামান জামান বলেন, নবী করীম (স.) বাস্তব জীবনে দেখিয়ে দিয়েছেন কিভাবে অন্যান্য ধর্মের লোকদের সম্মান করতে হয়। হাদিসে আছে- যদি কেউ, কোন হিন্দু-বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান বা অন্য কোন ধর্মের লোকের সম্পদ, সম্মানের হানি ঘটায়, কেয়ামতের দিন নবীজি (স.) নিজে বাদী হয়ে ওই সব মুসলমানদের বিরুদ্ধে আল্লাহর দরবারে অভিযোগ করবেন। তাই সাবধান, ইসলাম ধর্ম আগে বুঝুন, পড়ুন, শিখুন। এরপর পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।

তিনি বলেন, ‘ইসলাম ধর্ম ছিল, আছে এবং কেয়ামত পর্যন্ত থাকবে। এ ধর্মকে কেউই অপদস্থ করতে পারবে না। কেউ অপদস্থ করতে চাইলে তিনি নিজেই ধ্বংস হয়ে যাবেন। আবু জাহেল, আবু লাহাব, ফেরাউন, হাম্মান, সাদ্দাদসহ বিশ্বের বড় বড় কাফেররাও ইসলামের বিরুদ্ধে গিয়ে কিছু করতে পারেনি। তাই ইসলাম আজীবন থাকবে।’

এডভোকেট সামসুজ্জামান জামান বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি বিনষ্ট করতে একদল কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্র করছে। তারা চাইছে এদেশের মানুষের মাঝে দ্ব›দ্ব সৃষ্টি করে সমাজের শান্তি নষ্ট করতে। কিন্তু আমাদের সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি কেউ যাতে বিনষ্ট না করতে পারে সেই লক্ষ্যে দলমত নির্বিশেষে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে।’

রোববার (১৭ অক্টোবর) মিরাবাজারস্থা একটি হলরুমে সমাবেশটি অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে জয়দেব চক্রবর্তী জয়ন্তের সভাপতিত্বে ও বাংলাদেশ স্টুডেন্ট ইউনিটির আহ্বায়ক বদরুল আজাদ রানা ও আতিকুর রহমান চৌধুরী লাভলুর যৌথ পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন যুবনেতা অর্পণ কুমার ঘোষ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, মওদুদুল হক মওদুদ, কাউন্সিলর আব্দুর রকিব তুহিন, আইকম শর্মা, শহিদুল ইসলাম কাদির, সিদ্দিক আলী, রুজেল আহমদ, শামীম আহমদ, রায়হাদ বকস, আব্দুল হান্নান, দিলাল আহমদ, হাসান জুলফিকার তামিম, মামুন আহমদ, শামীম আহমদ, এনাম খান, দেওয়ান নিজাম খান, সাজ্জাদুর রহমান সাজু, আজম উদ্দিন রাজু প্রমুখ।

/এম/এ/

0Shares

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ