রাজপথে নামার বিকল্প নেই: ফখরুল

প্রকাশিত: ৯:৫১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৬, ২০২১

রাজপথে নামার বিকল্প নেই: ফখরুল

ডায়ালসিলেট ডেস্ক::বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে রাজপথে নামা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিও সম্প্রতি ডিজেল-কেরোসিনের দাম বৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের অবস্থা তুলে ধরে এক আলোচনা সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন। কাকরাইলের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য তরিকুল ইসলামেনর তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ‘তরিকুল ইসলাম স্মৃতি সংসদ’ এই আলোচনা সভা হয়। মির্জা ফখরুল বলেন, এদিকে জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে হু হু করে, অন্যদিকে এখন আবার হঠাত করে একলাফে পার লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়ে দিলো ডিজেল-কেরোসিনের দাম। ফলে আরো দ্বিগুন বাড়বে দ্রব্যমূল্য। এখন সাধারণ মানুষ যাবে কোথায়? তাদের তো এখন না খেয়ে অপুষ্টিতে মৃত্যুবরণ করার মতো অবস্থা হয়ে গেছে। আমরা সব সময় যেটা বলে আসছি, এখনো বলছি রাজপথে নামার কোনো বিকল্প নাই। তিনি বলেন, মুক্তির একমাত্র পথ হচ্ছে এদেরকে (আওয়ামী লীগ সরকার) সরিয়ে দিয়ে সত্যিকার অর্থেই একটা জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠা করা, পার্লামেন্ট তৈরি করা। আসুন আমরা সেই লক্ষ্যে সবাই ঐক্যবদ্ধ হই, আমরা সবাই রাজপথে নেমে আসি এবং আমাদের শক্তি দিয়ে, জনগনের শক্তি দিয়ে এই ভয়াবহ দানবীয় সরকারকে পরাজিত করে সত্যিকার অর্থে একটা জনগনের রাষ্ট্র, জনগনের পার্লামেন্ট, জনগনের সরকার তৈরি করি। মির্জা ফখরুল বলেন, যেহেতু আজকে মানুষ জেগে উঠেছে, কথা বলতে শুরু করেছে, এই যে তারা নিজের অধিকার আদায়ের জন্য কাজ করতে শুরু করেছে, ভোটের কথা বলছে, তাদের অধিকারের কথা বলছে, ভাতের অধিকারের কথা বলছে, স্বাস্থ্য অধিকারের কথা বলছে। সুতরাং সেইখান থেকে জনগনের দৃষ্টি সরিয়ে দিতে হবে। সেই কাজ তারা শুরু করেছে বিভিন্ন রকম ইস্যু তৈরি করে মানুষের দৃষ্টি ফেরানোর জন্য। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গোলোযোগের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, গত ৭ মাসে ৮৪জন নিহত হয়েছে এবং সব তাদের লোক। তারা নিজেরা নিজেরা এখন মারামারি করে। কারণ বিরোধী দল তো নাই। আজকে তারা লুট করে, নিজেরা মারামারি করে এবং নিজেদের মধ্যেই এই সমস্যা তারা তৈরি করছে। আর মামলা দেয় বিএনপির নামে। আপনারা দেখেছেন দুর্গাপূজার সময়ে কী করেছে? তারা নিজেরা দুর্গা পূজার সময়ে সমস্যা তৈরি করেছে, মন্ডপ ভেঙেছে এবং বিএনপি নেতাদের নাম উল্লেখ করে শত শত, হাজার হাজার লোকের নামে মামলা করেছে এবং অজানা মানুষকে আসামী করেছে। যাকে ধরে মামলা দিয়ে দেয়-এটা তাদের পুরনো স্টাইল। তরিকুল ইসলামের বর্ণাঢ্য জীবন তুলে ধরে তার আদর্শ অনুসরন করার জন্য নেতা-কর্মীদের প্রতি আহবান জানান বিএনপি মহাসচিব। তরিকুল ইসলামের স্মরণ সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আনিন্দ্য ইসলাম অমিত, সহিদুল ইসলাম বাবুল, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, বিএনপি নেতা রকিবুল ইসলাম বকুল, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকরামুল আহসান, ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি আলমগীর হাসান সোহান, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সিনিয়র সহ- সভাপতি কাজী রওকুল ইসলাম শ্রাবন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান আমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল প্রমূখ।

ডায়ালসিলেট এম/

0Shares

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ