ওমিক্রন তিনগুন বেশি সংক্রামক- দ. আফ্রিকার গবেষণা

প্রকাশিত: ১০:১৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩, ২০২১

ওমিক্রন তিনগুন বেশি সংক্রামক- দ. আফ্রিকার গবেষণা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::দক্ষিণ আফ্রিকাসহ প্রতিবেশী কতগুলো দেশের বিরুদ্ধে দেয়া ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা যখন পুনর্বিবেচনার জন্য আহ্বান জানাচ্ছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা, তখন দক্ষিণ আফ্রিকার বিজ্ঞানীরা বলছেন- নতুন শনাক্ত হওয়ার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট আগের শনাক্ত হওয়া ডেল্টা অথবা বেটা’র থেকে তিনগুণ বেশি সংক্রামক। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিজ্ঞানীরা সেদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা থেকে সংগ্রহ করা ডাটা বিশ্লেষণ করে এই তথ্য হাজির করেছেন। এর মধ্য দিয়ে এই প্রমাণ প্রথম উঠে এসেছে যে, আগের সংক্রমণ থেকে রোগ-প্রতিরোধক্ষমতা জন্ম নিলেও তাকে অতিক্রম করতে পারে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট। এই গবেষণাকর্ম প্রকাশ হবার আগেই তা সার্ভারের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে এখনো তা পিয়ার-রিভিউ হয়নি। ২৭শে নভেম্বর পর্যন্ত পরীক্ষা করা হয়েছে ২৮ লাখ মানুষকে। এরমধ্যে সন্দেহজনকভাবে নতুন করে সনাক্ত করা হয়েছে ৩৫ হাজার ৫৭০ জনকে। দক্ষিণ আফ্রিকার ডিএসআই-এনআরএফ সেন্টার অব এক্সিলেন্স ইন এপিডেমিওলজিক্যাল মডেলিং অ্যান্ড এনালাইসিসের পরিচালক জুলিয়েট পুল্লিয়াম এক টুইটে বলেছেন, করোনার যে তৃতীয় ঢেউ বয়ে গেছে, তাতে যারা সংক্রমিত হয়েছিলেন, সেসব মানুষই নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন। এসব মানুষ আগে ডেল্টা ভেরিয়েন্ট সংক্রমিত হয়েছিলেন। তিনি আরো সতর্কতা দিয়ে বলেন, যেসব মানুষের মধ্যে এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে তারা টিকা নিয়েছেন কিনা সে বিষয়টি নিশ্চিত নন গবেষকরা। এর ফলে টিকা নেয়ার ফলে যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সৃষ্টি হয়, তাকে ওমিক্রন অতিক্রম করতে পারে কিনা, সে বিষয়টি নিশ্চিত নয়। এ বিষয়ে গবেষকরা আগামী সপ্তাহে নজর দেবেন বলেও তিনি জানান। ইউনিভার্সিটি অব সাউদাম্পটনের বিজ্ঞানী মাইকেল এ গবেষণাকে উচ্চমানের বলে এর প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেছেন এই গবেষণা যথেষ্ট উদ্বেগের সৃষ্টি করে সেটা হল- এর আগে যারা সংক্রমিত হয়েছেন তারাই তুলনামূলকভাবে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন।

ডায়ালসিলেট এম/

0Shares