পাহাড়ি ছড়া সংরক্ষণে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়নে বেলা’র মতবিনিময়

প্রকাশিত: ৫:৪৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩১, ২০২৩

পাহাড়ি ছড়া সংরক্ষণে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়নে বেলা’র মতবিনিময়

ডায়াল সিলেট ডেস্ক:  মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অসংখ্য পাহাড়ি ছড়াগুলো চায়ের টিলার মাঝ দিয়ে প্রবাহিত ছড়া থেকে দীর্ঘ বালু উত্তোলনে পরিবেশ ও জনজীবনের মারাত্মক হুমকি পড়ছে। বালু খেকোদের অত্যাচারে উপজেলার সুনছড়া ও কামারছড়ার গতিপথ পরিবর্তনে সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব। সোমবার (৩১ জুলাই) বেলা ১১টায় উপজেলা পরিষদ হলরুমে পাহাড়ি ছড়া সংরক্ষণে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়নের পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) এর মতবিনিময় সভায় এসব কথা উঠে। বেলা’র নেটওয়ার্ক সদস্য ও মাগুরছড়া খাসিয়া পুঞ্জি প্রধান জিডিসন প্রধান সুচিয়ান এর সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) মো. রইছ আল রেজুয়ান, অফিসার ইনচার্জ সঞ্জয় চক্রবর্তী। অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বিষয়ে সভার শুরুতে প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বেলা’র সিলেট বিভাগীয় সমম্বয়ক এড. শাহ শাহেদা আক্তার।সভায় উপস্থিত আলীনগর চা বাগানের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. রফিউল আলম বলেন, বালু উত্তোলনকারীরা বেপরোয়া। সুনছড়া ও কামারছড়া থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে দু’টি ছড়া হুমকির মুখে। প্রভাবশালী বালু উত্তোলনকারীরা কাউকে তোয়াক্কা করে না। বাগানের লোহার গেট, ডাণ্ডাগেট ভেঙ্গে ট্রাকযোগে প্রতিনিয়ত বালু পরিবহন করছে। এতে টিলা ও রাস্তাঘাট ভেঙ্গে পড়ছে।  উপজেলার সুনছড়া, কামারছড়া, লঙ্গুছড়া, লাঘাটা ও ধলাই নদীর অসংখ্য স্থান থেকে অবৈধ আর অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলিত হচ্ছে। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল নির্দ্বিধায় ছড়া ও নদীর স্থানে স্থানে বালু উত্তোলন করে ডায়না, পিকআপ ও ট্রলিযোগে পরিবহন ও বিক্রি করছে। স্থানীয় সরকার দলীয় প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় প্রতিনিয়ত বালু উত্তোলন ও পরিবহন হলেও প্রশাসন নির্বিকার। সুনছড়া চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি জীবাধন নায়েক, সম্পাদক প্রশান্ত কৈরী, দীবাশুক্ল বৈদ্যসহ স্থানীয় চা শ্রমিকরা বলেন, চা বাগান কর্তৃপক্ষের নিষেধ উপেক্ষা করেও দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত। বালু উত্তোলনের পর সুনছড়া ও কামারছড়ায় যাতায়াতে ৫০ বছর পুরনো ব্রীজের দু’পাশ ভেঙ্গে পড়েছে। ছড়ার গতিও কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। ছড়া থেকে বালু উত্তোলনের পাশাপাশি চায়ের টিলার গাঁ ঘেষেও বালু উত্তোলন করার কারনে বর্তমানে টিলার গাঁ ধ্বসে পড়ছে বলে তারা অভিযোগ করেন। বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) এর সিলেট বিভাগীয় সমম্বয়ক এড. শাহ শাহেদা আক্তার বেলার দায়েরকৃত মামলায় আদালতের নির্দেশনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পাহাড়ি ছড়ায় সিলিকা বালু উত্তোলনে নিয়ে বেলা’র উচ্চ আদালতে রীট রয়েছে। আদালতের নির্দেশনা উপেক্ষা করে বালু উত্তোলন হচ্ছে। উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) মো. রইছ আল রেজুয়ান বলেন, গত সপ্তাহেও একটি গাড়ি আটক করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত থাকবে। তবে এসব বিষয়ে স্থানীয়দেরও এগিয়ে আসা উচিত।

0Shares

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ