সিলেটে কর্মস্থলে থাকেন না ৪৪% ডাক্তার-কর্মচারী

প্রকাশিত: ২:৫০ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২৪

সিলেটে কর্মস্থলে থাকেন না ৪৪% ডাক্তার-কর্মচারী

রোগীদের দুর্ভোগ

 

ডায়াল সিলেট রিপোর্ট :: সিলেটে সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে চিকিৎসক এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি পুরোপুরি নিশ্চিত হচ্ছে না। সরকার নানা উদ্যোগ নিলেও কর্মস্থলে যথাসময়ে থাকেন না ডাক্তার-কর্মচারী।

 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ থেকে জানাগেছে, সারাদেশের মতো সিলেট বিভাগেও প্রতিদিন অনুপস্থিত থাকেন গড়ে ৪৪ শতাংশ চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারী। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয় রোগীদের, পোহাতে হয় দুর্ভোগ। নিরুপায় হয়ে অনেকে বেসরকারি হাসপাতালে যেতে বাধ্য হন।

 

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দায়িত্ব পালনে অবহেলাকারীদের শাস্তি না হওয়ায় উদ্বেগজনক এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি রয়েছে শক্ত তদারকির অভাব। দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের দক্ষতায়ও ঘাটতি রয়েছে।

 

সরেজমিন সিলেটের মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, বেলা ১টার পর চিকিৎসক পাওয়া কঠিন। সকাল ১১টার আগে বহির্বিভাগে আসেন না কেউ। সদর উপজেলার বাসিন্দা আফতাব উদ্দিন সরকার হাড়ের সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে এসে বেলা ১১টা পর্যন্ত হাসপাতালের বহির্বিভাগে তালা ঝুলতে দেখা যায়। তখন চিকিৎসক না দেখিয়েই চলে যান অনেকে। একই সমস্যা নিয়ে রোশনা বেগম ও চা শ্রমিক বধূ ভৌমিক এসেও ডাক্তার না পেয়ে ফিরে যান।

 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমের তথ্য বলছে, সারাদেশে সরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত মোট চিকিৎসকের গড়ে ৪৬ শতাংশ প্রতিদিন কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকেন। তাদের ডিজিটাল হাজিরার এক সপ্তাহের উপাত্ত (১ থেকে ৮ জানুয়ারি) বিশ্লেষণ করে এই চিত্র পাওয়া যায়। আট বিভাগের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, জেলা সদর ও জেনারেল হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতালে কর্মরত ৩৪ হাজার চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে ১৮ হাজার ৩৬০ জন কর্মস্থলে অনুপস্থিত ছিলেন; যা মোট জনবলের ৪৬ শতাংশ। এমআইএসের উপাত্ত অনুযায়ী, উল্লিখিত উপস্থিতি ছিল সিলেট বিভাগ ৫৬ দশমিক ১৮ শতাংশ। এ হিসাবে কর্মস্থলে অনুপস্থিতি থাকেন সিলেটের ৪৪ শতাংশ।

 

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, প্রতিদিন বড় একটি সংখ্যায় চিকিৎসক-কর্মকর্তার হাসপাতালে অনুপস্থিতি কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। সরকার যেহেতু বেতন দেয়, তাই প্রত্যেক চিকিৎসককে অবশ্যই হাসপাতালে উপস্থিত থাকতে হবে।

 

0Shares