জগন্নাথপুরে তরুণী ‘ধর্ষণ’ : ছয় আসামি রিমান্ডে

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ১১:১৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০২০

ডায়ালসিলেট ডেস্ক::

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে তরুণীকে জোরপূর্বক আটকে রেখে ধর্ষণ এবং ওই তরুণীকে আবারও খুঁজতে এসে তাকে না পেয়ে তার বাবাকে মারধরের ঘটনায় আসামিদের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ রবিবার (১১ অক্টোবর) সুনামগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শুভদীপ পালের আদালত আসামিদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মুসলেহ উদ্দিন জানান, আসামিদের রিমান্ড মঞ্জুরের আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত প্রধান আসামি শামীম আহমদকে ৭ দিনের এবং অপর ৫ আসামি লিটন মিয়া (৩০), আকাই মিয়া (২৭), আলম মিয়া (২৮), দিলাক মিয়া (২৫) ও কাজল মিয়ার (৪৫) একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

প্রসঙ্গত, সাত বছর আগে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় ওই তরুণীর বিয়ে হয়। বিয়ের দুই বছর পর দাম্পত্য বিরোধ দেখা দিলে একমাত্র ছেলেকে নিয়ে তিনি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে বাবার বাড়িতে চলে আসেন। এরপর থেকে গোতগাঁও গ্রামের আঙ্গুর মিয়ার বখাটে ছেলে শামীম মিয়া ওই তরুণীকে নানাভাবে উত্ত্যক্ত করতে থাকেন। শামীম তার শিশু সন্তানকে হত্যা করার ভয় ও বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোরপূর্বক তাকে বাড়ি থেকে অপহরণ করে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করেন। শামীমের হাত থেকে বাঁচতে মেয়েটি নবীগঞ্জ উপজেলার একটি বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজ নিয়ে বাবার বাড়ি থেকে চলে যান। গত সোমবার রাত ১২টার দিকে বখাটে শামীম তার লোকজনকে নিয়ে মেয়েটির বাবার বাড়িতে যান। মেয়েকে না পেয়ে বৃদ্ধ বাবাকে ধরে তার বাড়িতে নিয়ে গিয়ে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করেন। ওই ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হলে খবর পেয়ে পুলিশ সোমবার রাতেই অভিযানে নেমে চারজনকে আটক করে এবং গত বুধবার এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আরও একজনকে আটক করে।

এ ঘটনায় গত মঙ্গলবার রাতে তরুণী বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করেন। গত শুক্রবার জগন্নাথপুর থানার পুলিশ ও সুনামগঞ্জের ডিবি পুলিশের যৌথ অভিযানে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল থেকে প্রধান আসামি শামীমকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ রবিবার সকল আসামির রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

 

0Shares