জালালাবাদ ইমাম সমিতি মুফতী বোর্ডের সভায় চলতি বছরের ফিতরার মূল্য নির্ধারণ

প্রকাশিত: ৪:৪৪ অপরাহ্ণ, মে ৬, ২০২১

ডায়ালসিলেট ডেস্ক:

৪ মে ২০২১ই বাদ এশা এ বছর সিলেট শহর ও শহরতলীর জন্য নগদ টাকা হিসেবে ফিতরার পরিমাণ নির্ধারণের লক্ষ্যে জালালাবাদ ইমাম সমিতির এক অধিবেশন নগরীর জিন্দাবাজার¯’ বায়তুল আমান জামে মসজিদে সমিতির সভাপতি মাওলানা মজদুদ্দীন আহমদ এর সভাপতিত্বে ও সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা হোসাইন আহমদ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত সভায় বাজার যাচাই-বাছাই করে রিপোর্টের ভিত্তিতে আলোচনা পর্যালোচনা করে জনপ্রতি সর্বনিম্ন ৬৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।নেসাব পরিমাণ সম্পত্তির মালিক নারী ও পুরুষ সকলের উপর সাদাক্বাতুল ফিতর আদায় করা ওয়াজিব। না বালেগ সন্তানের পক্ষ থেকে নেসাবের মালিক পিতার উপর সাদাক্বাতুল ফিতর আদায় করা ওয়াজিব। নেসাব পরিমাণ সম্পত্তির মালিক না হলেও যারা বিনা কষ্টে সাদাক্বাতুল ফিতর আদায় করতে পারেন তাদের জন্য ফিতরা আদায় করা ভালো, কেননা ফিতরার মাধ্যমে রোযার ক্রটি বিচ্যুতির ক্ষতিপূরণ হয়।

আর সাদাক্বাতুল ফিতর গম বা আটা,যব, খেজুর ও কিসমিস দ্বারা আদায় করা যায়।গম বা আটা অর্ধ সমান ১ কেজি ৬৫০ গ্রাম প্রায়। আর খেজুর, কিসমিস এক সমান ৩ কেজি ৩০০ গ্রাম প্রায়, আদায় করতে হয়। তবে অবস্হা বিবেচনায় উপরোক্ত পুণ্যাদি না দিয়ে এর মূল্য আদায় করা উত্তম। অনূরূপভাবে নগদ টাকা না দিয়ে সমমূল্যের অন্য কোন দ্রব্য কাপড়, ধান, চাউল ইত্যাদি দেওয়াও উত্তম হবে না।সে মতে গম বা আটা অর্ধ এর মূল্য হিসেবে ফিতরার পরিমাণ হবে প্রতি কেজি ৩৮ টাকা দরে জন প্রতি ৬৫ টাকা।আর খেজুরের হিসেবে প্রতি কেজি ১৫০ টাকা দরে এক এর মূল্য (৩ কেজি ৩০০ গ্রাম) ৫০০ টাকা। এবং কিসমিস হিসেবে প্রতি কেজি ২৮০ দরে ৯২৫ টাকা।

উপরোল্লেখিত যে কোন একটি পণ্যের মূল্য হিসেবে সাদকাতুল ফিতর আদায় করা জায়েয হলেও সমাজে বিত্তবান হিসেবে পরিগণিত ব্যাক্তিদের জন্য বিত্ত অনুপাতে যথাক্রমে খেজুর ও কিসমিস এর মধ্যে থেকে যে কোন একটির মূল্য হিসেবে সাদকাতুল ফিতর আদায় করা উত্তম হবে। ফিতরা ঈদের জামাতের আগে বা পরে যে কোন সময় আদায় করা জায়েয হলেও ঈদের জামাতের আগেই আদায় করা উত্তম।

0Shares