বড় চমকের অপেক্ষায় ফিনল্যান্ড

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ৯:৩৮ পূর্বাহ্ণ, জুন ৬, ২০২১

স্পোর্টস ডেস্ক::দুয়ারে দাঁড়িয়ে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ। যা বিশ্বকাপের পর ফুটবলের বড় ফুটবল আসর। দর্শকদের এই উন্মাদনার সঙ্গী হতে চায় মানবজমিন। ইউরো- ২০২০ এর ৬ গ্রুপ নিয়ে বিশেষ ধারাবাহিকের দ্বিতীয় দিনে থাকছে ‘বি’ গ্রুপের বিস্তারিত

‘বি’ গ্রুপের বাড়তি আকর্ষণ ফিনল্যান্ড। প্রথমবার ইউরোয় খেলবে ফিনিশরা। আগের ১৩ বারের প্রচেষ্টায় ব্যর্থ হয়েছে তারা। এবারের বাছাইপর্বে ১০ ম্যাচের ৬টি জিতে চূড়ান্ত পর্বে নাম লেখায় ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের ৫৪ নম্বরে থাকা ফিনল্যান্ড। র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল বেলজিয়ামের সঙ্গে ‘বি’ গ্রুপের অপর দুই দেশ ডেনমার্ক ও রাশিয়া।

গত বছরের নভেম্বরে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে হারিয়ে চমক দেখায় ফিনল্যান্ড।

ইউরোয় জায়গা করে নিয়ে চমক দেখানো ফিনল্যান্ডের ফ্রান্সকে হারানোটা ছিল ২০২০ সালের ফুটবলে অন্যতম অঘটন। তবে ফিনিশদের সাম্প্রতিক পারফরমেন্স নড়বড়ে। শেষ পাঁচ ম্যাচে তিন হার ও দুই ড্র। অবশ্য ফর্মে রয়েছেন অভিজ্ঞ ফিনিশ স্ট্রাইকার তিমু পুকি। সর্বশেষ ইংলিশ চ্যাম্পিয়নশিপ আসরে তৃতীয় সর্বোচ্চ ২৬ গোলের কৃতিত্ব নরউইচ সিটি স্ট্রাইকারের।

আট বছর পর ইউরোয় ফিরেছে ডেনমার্ক। গ্রুপ পর্বের তিনটি ম্যাচই ডেনিশরা খেলবে ঘরের মাঠে। ২০১২তে পোল্যান্ড-ইউক্রেনে হওয়া আসরের গ্রুপ পর্বেই থামে ডেনিশদের ইউরো যাত্রা। এবার ভিন্ন কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের দশ নম্বরে থাকা দলটি। সর্বশেষ ম্যাচে জার্মানিকে ১-১ গোলে আটকে দিয়েছে ডেনমার্ক। জিতেছে শেষ পাঁচ ম্যাচের তিনটিতেই। অভিজ্ঞ ফুটবলারে ভরা ডেনিশদের ইউরো স্কোয়াড। একশরও বেশি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন এসি মিলান তারকা ও ডেনমার্ক অধিনায়ক সিমন কায়ের। ইন্টার মিলানের হয়ে সিরি এ জেতা মিডফিল্ডার ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন খেলেছেন ১০৭ ম্যাচ। আক্রমণভাগে ডেনিশদের ভরসা বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড মার্টিন ব্র্যাথওয়েট ও লাইপজিগ তারকা ইউসুফ পুলসেন।

গত বিশ্বকাপে ঘরের মাঠে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে বিস্ময় জাগিয়েছিল রাশিয়া। তারা এবারের ইউরোর গ্রুপ পর্বে ২ ম্যাচ খেলবে নিজ মাঠে। ঘরের মাঠে সব সময়ই শক্তিশালী রুশরা। নিজ দেশে খেলা শেষ ৫ ম্যাচে সমান দুটি করে জয় ও ড্র তাদের। হার একটি। শেষ প্রীতি ম্যাচে রাশিয়া ১-১ গোলে রুখে দিয়েছে রবার্ট লেভানদোভস্কির পোল্যান্ডকে। ইউরোর প্রথম আসর ১৯৬০ সালে প্রথম ও শেষবার শিরোপা জেতে রাশিয়া। এরপর তিনবার হয়েছে রানার্সআপ। ২০০৮ সালে সেমিফাইনালে উঠেছিল তারা। পরের দুই আসরে অবশ্য বাদ পড়ে গ্রুপ পর্বেই। রাশিয়ান প্রিমিয়ার লীগে সেন্ট জেনিত পিটার্সবার্গের জার্সি গায়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার (২০ গোল) পুরস্কার জিতে ফর্ম ধরে রেখেছেন রুশ অধিনায়ক আরতেম জিউবা।

ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল বেলজিয়াম এবারের ইউরোর অন্যতম ফেভারিট। রোমেলু লুকাকু, কেভিন ডি ব্রুইনা, এডেন হ্যাজার্ড, থিবো কোর্তোয়াদের মতো তারকাদের নিয়ে গড়া বেলজিয়াম গত বিশ্বকাপের তৃতীয় সেরা দল । ফ্রান্সে হওয়া গত ইউরোতে বেলজিকরা বাদ পড়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে। ইউরোয় বেলজিয়ামের সেরা সাফল্য ১৯৮০তে রানার্সআপ হওয়া। দলটির সাম্প্রতিক ফর্ম দুর্দান্ত। শেষ ১০ ম্যাচ খেলে ৬ জয় ও ৩ ড্র। গত বিশ্বকাপে বেলজিয়ামকে সেমিফাইনালে তোলা কোচ রবার্তো মার্তিনেজই থাকছেন দলটির দায়িত্বে। সহকারী কোচের  পদে বেলজিয়াম ফিরিয়ে এনেছে ১৯৯৮ বিশ্বকাপজয়ী ফরাসি স্ট্রাইকার থিয়েরি অঁরিকে। বেলজিয়ামকে আত্মবিশ্বাস যোগাবে দলের দুই প্রধান ফুটবলারের গত মৌসুমের সাফল্য। বেলজিয়ামের এক নম্বর স্ট্রাইকার রোমেলু লুকাকু ইন্টার মিলানকে সিরি আ জেতাতে রেখেছেন বড় ভূমিকা। ইতালিয়ান সিরি আ আসরে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পেছনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৪ গোলের কৃতিত্ব লুকাকুর। আর ম্যানচেস্টার সিটিকে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ জয়ে বড় অবদান মিডফিল্ডার ডি ব্রুইনার।

এ/

0Shares