দক্ষিণ আফ্রিকার দাঙ্গা-সহিংসতা ‘পূর্বপরিকল্পিত’

dial dial

sylhet

প্রকাশিত: ১১:০৮ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০২১

ডায়ালসিলেটে ডেস্ক :: দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রায় এক সপ্তাহ ধরে চলা দাঙ্গা-সহিংসতা পূর্বপরিকল্পিত বলে দাবি করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট সাইরিল রামাফোসা। গত শুক্রবার তিনি বলেছেন, ‘এটি পরিষ্কার যে, এসব অস্থিরতার ঘটনা ও লুটপাট প্ররোচিত ছিল। কিছু লোক এর পরিকল্পনা ও সমন্বয় করেছে।’ সাম্প্রতিক সহিংসতায় দেশটির অন্যতম ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা এথিকিউয়িনি পরিদর্শনে গিয়ে এসব কথা বলেন প্রেসিডেন্ট রামাফোসা।

সাবেক প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার কারাভোগ শুরুর জেরে সম্প্রতি ব্যাপক বিক্ষোভ-সহিংসতা শুরু হয় দক্ষিণ আফ্রিকায়। লুটপাট করা হয় অসংখ্য ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান। বিক্ষোভ দমন ও লুটপাটকালে পদদলিত হয়ে সেখানে এ পর্যন্ত অন্তত ১১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

দাঙ্গার পরিকল্পনাকারীদের বিষয়ে রামাফোসা সাংবাদিকদের বলেছেন, আমরা তাদের ভালো একটি সংখ্যা চিহ্নিত করেছি। আমরা আমাদের দেশে অরাজকতা ও দাঙ্গা-হাঙ্গামা হতে দেব না। আমরা তাদের ধরতে যাচ্ছি।

দক্ষিণ আফ্রিকা সরকার গত বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, তারা সন্দেহভাজন এক উস্কানিদাতাকে গ্রেফতার করেছে এবং আরও ১১ জনকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে। এ কয়দিনে চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগে অন্তত ২ হাজার ২০৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শুক্রবার দক্ষিণ আফ্রিকান প্রেসিডেন্ট স্বীকার করেছেন, তার সরকার বিক্ষোভ-সহিংসতা প্রতিরোধে আরও দ্রুত ব্যবস্থা নিতে পারত। এদিন কাওয়াজুলু-নাটাল এলাকায় বর্ণবাদী উত্তেজনা বৃদ্ধি নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকার এই দাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বাংলাদেশিরাও। ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের শিকার হয়ে ব্যবসার মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে দুইশ’রও বেশি বাংলাদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের।

দাঙ্গা নিয়ন্ত্রণে দেশটির রাস্তায় ২০ হাজারের বেশি সেনা মোতায়েন নামানো হয়েছে।

সূত্র: আল জাজিরা, বিবিসি

ডায়ালসিলেটে/এম/এ/

0Shares