ব্রিটেনে সোমবার থেকে সেনাবাহিনী নামছে, পেট্রোল স্টেশনের বাইরে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ

প্রকাশিত: ৪:৪২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২, ২০২১

ব্রিটেনে সোমবার থেকে সেনাবাহিনী নামছে, পেট্রোল স্টেশনের বাইরে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ

আন্তর্জাতিক  ডেস্ক::আগামী সোমবার থেকে ব্রিটেনের রাস্থায় সেনাবাহিনী নামবে। তবে টহল দিতে নয় জ্বালানী তেল সরবরাহ করতে। এর আগে ব্রিটেন সরকার বলেছিল, এ পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রয়োজনে সেনাবাহিনী নামানো হবে। তাই সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সাথে সাথে সরকারের পক্ষ থেকে এটাও বলা হয়েছিল যে, সরবরাহ ব্যবস্থার সংকট সমাধানে সাহায্য করার জন্য মোতায়েন করার আগে সেনাবাহিনীর ট্যাংকার চালকদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। গত সোমবার রাতে এক বিবৃতিতে যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যমন্ত্রী কোয়াসি কোয়ারটেং বলেছিলেন, ‘প্রয়োজন হলে, জ্বালানির জন্য তৈরি হওয়া চাপ কমাতে অস্থায়ী পদক্ষেপ হিসেবে সামরিক বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করে সরবরাহ ব্যবস্থায় অতিরিক্ত সক্ষমতা যোগানো হবে।

ব্রিটেনে সরবরাহজনিত সংকটের কারণে গত এক সপ্তাহের উপর থেকে পাম্পগুলোর অনেকটা জ্বালানীশূন্য হয়ে পড়ার মধ্যে আতঙ্কিত গাড়িচালকরা হুমড়ি খেয়ে পড়ে গাড়ি নিয়ে পেট্রল পাম্পগুলোর দিকে। এর ফলে পরিস্থিতি নাজুক হয়ে উঠে। এ পরিস্থিতি প্রথম অবস্থার মত এখনও না হলেও পেট্রল পাম্পগুলোতে দীর্ঘরাত পর্যন্ত দীর্ঘ লাইন থাকতে দেখা যায়।

জ্বালানি তেলের পর্যাপ্ত মজুদ থাকলেও ফিলিং স্টেশনগুলোতে তা পাঠানো যাচ্ছে না। আর এটাই হল এ সমস্যার মূল কারণ।

দেশটির সরকার এরই মধ্যে ৫ হাজার বিদেশি ট্রাক চালককে অস্থায়ী ভিসা দেওয়ার পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে। সংকট মোকাবিলায় এই শিল্পের সাবেক চালকদের ফিরিয়ে আনতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে।

এদিকে পেট্রোল স্টেশন গুলোতে দীর্ঘক্ষন লাইনে দাড়িয়ে তেল না পাওয়ার কারণে কর্মীকে লাঞ্চিত করার দৃশ্যও উঠে এসেছে সংবাদ মাধ্যমগুলোতে। এমতাবস্থায় একটি পেট্রোল স্টেশনে তেল নেওয়ার লাইনে একজন ক্রেতা ছুরি নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকার দৃশ্যও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তাই অনেক পেট্রোল স্টেশনগুলোর দীর্ঘ লাইন নিয়ন্ত্রনে স্টেশনের বাইরে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ।

তবে পেট্রোল নিয়ে এতো সংকটের মাঝে অনেক ক্রেতা নিজস্ব গাড়ি ছেড়ে ভিড় করছেন পাবলিক ট্রান্সপোর্টগুলোতে। এ ব্যাপারে ট্রান্সপোর্ট অফ লন্ডনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এর ফলে ট্রেনের যাত্রী ৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। একই সাথে বাসের যাত্রী বৃদ্ধি পেয়েছে দুই শতাংশ। যার মধ্যে সব থেকে বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে লন্ডনে। যাত্রী উন্নয়ন সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, স্টেশন গুলোর সামনে লম্বা লাইন থাকার কারনে লন্ডনের অনেক রাস্তায় যানজট তৈরি হচ্ছে। এছাড়া লন্ডনের বাইরে যেতে টিকিটও পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন অনেক যাত্রী।

ডায়ালসিলেট এম/

0Shares